আলোচিত সমাজকর্মী ও ‘চাইল্ড এন্ড ওল্ড এইজ কেয়ার’ নামের প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মিল্টন সমাদ্দারের বিরুদ্ধে অপারেশন থিয়েটারে রোগীর অপারেশন করে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিক্রিসহ নানা অভিযোগ উঠেছে। এই বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে অভিযোগের পর দেশব্যাপী সমালোচনা শুরু হলে মিল্টন সমাদ্দারকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গ্রেপ্তারের পর ডিবি জানায়, মিল্টন সমাদ্দারের সংস্থার অপারেশন থিয়েটারের লাইসেন্স ছিল না। সেখানে অবৈধভাবে অপারেশন করা হতো।


আজ বুধবার (১ মে) রাতে রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিবি অফিসে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।


ডিবিপ্রধান বলেন, বরিশালের উজিরপুরের মিল্টন সমাদ্দারের উত্থান নিজ পিতাকে পিটিয়ে। এই অপরাধে এলাকাবাসী তাকে বাড়ি ছাড়া করেন। এরপর ঢাকার শাহবাগে এসে একটি ফার্মেসিতে কাজ শুরু করেন। ওষুধ বিক্রির টাকা চুরি করায় সেখানেও বেশিদিন টিকতে পারেননি মিল্টন। এরপর মিতু হালদার নামের এক নার্সকে বিয়ে করেন তিনি।

বিয়ের পর ওল্ড এন্ড চাইল্ড নামের একটি কেয়ার সেন্টার স্থাপনের স্বপ্ন দেখেন তারা। পরবর্তীতে মিরপুর এলাকায় চাইল্ড অ্যান্ড ওল্ড এইজ কেয়ার নামের একটি কেয়ার সেন্টার স্থাপন করেন। তিনি খুঁজে গরিব বৃদ্ধ এবং শিশুদের সেখানে নিয়ে আসতেন। বিভিন্ন মিডিয়ায় সে জানিয়েছে, তার কেয়ার সেন্টারে অপারেশন থিয়েটার আছে এবং সেখানে সে মানুষের সেবা প্রদান করেন। অপারেশন থিয়েটার থাকলে তো লাইসেন্স থাকতে হবে। কিন্তু সেই অপারেশন থিয়েটারের লাইসেন্স ছিল না।

মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, মিল্টন সমাদ্দারের বিরুদ্ধে মানবপাচার, অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিক্রি, মারধরের অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়া মৃত্যু সনদ জালিয়াতি, বেআইনিভাবে মরদেহ দাফনসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। তার বিরুদ্ধে অজস্র অভিযোগ। এসব বিষয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

হারুন অর রশীদ বলেন, বেশিরভাগ লাশ মিল্টন রাতে দাফন করেন। তাকে জিজ্ঞাসা করা হলো রাতে লাশ কেন দাফন করেন? মিল্টন উত্তরে জানান, রাতে লাশ দাফন না করলে মানুষ তাকে প্রশ্ন করেন।

হারুন অর রশীদ বলেন, ৩০-৩৫ লাখ টাকা মিল্টন মাসে খরচ করেন কিন্তু বৃদ্ধাশ্রমে বৃদ্ধদের সেবা দেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। এমনকি মৃত্যুসনদ নিজ হাতে জাল করে লেখেন বলে মিডিয়াতে স্বীকার করেছেন। ৯০০ লাশ দাফনের গরমিলের হিসাব দেখাতে পারেননি মিল্টন। তার বিরুদ্ধে অজস্র অভিযোগ। তাকে রিমান্ডে নেওয়া হবে। বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

ডিবিপ্রধান আরও বলেন, মিল্টন সমাদ্দার অপারেশন থিয়েটার থেকে রোগীদের কিডনি বিক্রি করেছেন কি না সেটিও তদন্ত করা হবে। কেন তিনি মৃত্যুসনদ জাল করলেন, সবকিছু তদন্ত করে জানাব। মামলা রুজু হওয়ার পর, তদন্তের পর বিস্তারিত জানানো হবে।

আজ বুধবার (১ মে) সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাঁকে রাজধানীর মিরপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়।