প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এই সেতু আমাদের গর্বের সেতু। এই একটা সিদ্ধান্ত বাংলাদেশকে অন্তত সেই মর্যাদা দিয়েছে যে, আগে যারা কথায় কথায় আমাদেরকে খবরদারি করত, আর ভাবখানা ছিল যে তারা ছাড়া বাংলাদেশ চলতেই পারবে না,  সেই মানসিকতাটা বদলে গেছে।

স্বপ্নের পদ্মা সেতুর সব কাজ শেষ উপলক্ষে প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তিতে আজ শুক্রবার (৫ জুলাই) বিকেলে মাওয়া প্রান্তে শুরু সুধী সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সেই সমাবেশে বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা যখন ক্ষমতায় ছিলাম না, বিদেশে গিয়েছি, তখন বাংলাদেশ নাম শুনলে জিজ্ঞেস করত, এটা কী ভারতের কোনো অঞ্চল? বলা হতো—এই দেশে তো শুধু ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস আর দুর্ভিক্ষ লেগে থাকে। ভিক্ষুকের জাতি, মিসকিন হিসেবে আমাদের দেখা হতো। যেটা আমাদের জন্য অত্যান্ত কষ্টের, ব্যথার ছিল। বাংলাদেশের জনগণের টাকায় এখন পদ্মা সেতুর কাজ শেষে হয়েছে।  

শেখ হাসিনা বলেন, লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি স্বাধীনতা। আর সেই স্বাধীন জাতি হিসেবে আমাদের মর্জদা থাকবে না, আমরা কথা বলতে পারব না, আত্মমর্জদাবোধ আমাদের থাকবে না, এটা কেমন ধরনের বাংলাদেশ?

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে দেশকে উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে গেছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী জানান, এই পদ্মা সেতু নির্মাণে দেশি বিদেশি ষড়যন্ত্র ছিল। সেই ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে দিয়ে আজ পদ্মা সেতু বাস্তব। দেশের মানুষ উপকৃত হচ্ছে। তিনি বলেন, যখন সবাই না করেছে, তখন আমি বলেছি করব। আজ যে পদ্মা সেতু শেষ করতে পেরেছি তার জন্য আমি আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই, দেশের জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।